আজ-  ,

basic-bank

সাপ্তাহিক ইনতিজার রেজি. ন. ডি-এ ১৭ ৬৮ এর একটি ওয়েব সাইট সংষ্করণ


সংবাদ শিরোনাম :
«» বাংলাদেশ ইউনিয়ন পরিষদ ফোরাম কর্তৃক সফল ”এ” গ্রেড চেয়ারম্যান ও গোল্ড মেডেল” পদক ঘোষণা «» টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে ছায়ানীড়ের ভাষা অনুষ্ঠিত «» বাংলাদেশ আওয়ামী তথ্য-প্রযুক্তি লীগ আহবায়ক কমিটি, টাঙ্গাইল জেলা শাখা। «» এ মানচিত্র আমার «» টাঙ্গাইলরে গোপালপুরে নলনি বাজারে ভয়াবহ অগ্নকিান্ড; ক্ষতি ২৫ লাখ টাকা «» শীতের আগমনী গান «» মৃতঃ ব্যক্তির স্থলাভিষিক্ত অন্যজন উপস্থিত হয়ে জমি বিক্রয় বিষয়টি সম্পূর্ন ভুল হয়েছে- ডাঃ স্বপ্না রাণী, সাব রেজিঃ, সখীপুর-টাঙ্গাইল «» ধুনটে চালকের মুখে গাম লাগিয়ে অটোভ্যান ছিনতাই «» বিপিএলের সময়ে কিছুটা পরিবর্তন «» মেসির জাদুরে জয় পেল বার্সেলোনা

পেছাল মেডিকেল ও ডেন্টালে ভর্তি পরীক্ষা

২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের মেডিকেল ও ডেন্টাল প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা পিছিয়েছে। এ পরীক্ষা ৪ অক্টোবর হচ্ছে না। ১১ অক্টোবর সম্ভাব্য তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।

স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয় এবং স্বাস্থ্য অধিদফতরের একাধিক বিশ্বস্ত সূত্রে এ তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের অধীনে ৪ অক্টোবর এমবিবিএস প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব দুর্গাপূজা ও বিভিন্ন পরীক্ষাকেন্দ্র বিশেষ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে হলরুমপ্রাপ্তি নিয়ে সংশয় থাকায় তারিখ পরিবর্তন করা হয়েছে।

সূত্র জানায়, ৪ অক্টোবর দুর্গাপূজার ষষ্ঠী। এ কারণে হিন্দু সম্প্রদায়ের পক্ষ থেকে ওই দিনের অনুষ্ঠিতব্য এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা পিছিয়ে দেয়ার জন্য অনুরোধ জানিয়ে একটি চিঠি দেয়া হয় স্বাস্থ্য অধিদফতরে।

ওই চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ে ওভারসাইট কমিটির এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে ৪ অক্টোবরের পরীক্ষা পিছিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়। ভর্তি পরীক্ষা এক সপ্তাহ পিছিয়ে ১১ অক্টোবর গ্রহণের আপাতত সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের একজন পদস্থ কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে যুগান্তরকে বলেন, ৪ অক্টোবর এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে না। প্রাথমিকভাবে ১১ অক্টোবর পরীক্ষা গ্রহণের সিদ্ধান্ত হয়েছে। পরীক্ষার হল পাওয়া যাওয়া নিয়ে সমস্যা না হলে ওই দিনই এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।

২৭ আগস্ট থেকে অনলাইনে এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষার আবেদনপত্র গ্রহণ শুরু হয়। ১৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলবে এ আবেদনপত্র গ্রহণ। এ পরীক্ষায় প্রায় ৭০ হাজার আবেদন পড়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে সরকারি ৩৬টি মেডিকেল কলেজে মোট আসন সংখ্যা ৪ হাজার ৬৮টি। এর মধ্যে ৩ হাজার ৯৬৬টি সাধারণ, ৮২টি মুক্তিযোদ্ধা কোটা এবং ২০টি উপজাতি কোটা রয়েছে।

এ ছাড়া বেসরকারি ৬৯টি মেডিকেল কলেজে আসন সংখ্যা ৬ হাজার ২৩১টি। সার্ক ও নন-সার্কভুক্ত দেশসমূহের জন্য সংরক্ষিত আসন সংখ্যা ১ হাজার ৭৮৩টি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Powered By : Intizar24 Developed By : BDiTZone